বাংলাদেশের পররাষ্ট্র স’চিব মাসুদ বিন মোমেন বলেছেন, নাগরিকত্ব আইন নিয়ে ভারতের দিল্লিতে সহিং’সতা দেশটির অভ্যন্তরীণ বি’ষয়। আমরা চাইব- যত দ্রুত সম্ভব এটার সমাধান আসুক।

তিনি বলেন, নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের বি’রোধিতায় কোনো বি’ক্ষো’ভই আমরা আমলে নিচ্ছি না। মুক্তিযু’দ্ধের সময় প্রতিবেশী রাষ্ট্র হিসেবে ভারতের অবদান অস্বীকার করার সুযোগ নেই। মুজিববর্ষ উপলক্ষে আগামী ১৭ মার্চ সকালে আমাদের মহান স্বাধীনতার অন্যতম সহযোগী প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি আমাদের দেশে আসবেন।

আসেম ডে উপলক্ষে রোববার রাজধানী ইস্কাটনে বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব ইন্টারন্যাশনাল অ্যান্ড স্ট্রাটেজিক স্টাডিজ (বিজ) মি’লনায়তনে আয়োজিত এক সেমিনারে স’চিব এ সব কথা বলেন।

মোদির এ সফরে বাংলাদেশ-ভারতের অমীমাংসিত বিভিন্ন বি’ষয় আলোচনায় আসবে কিনা- জানতে চাইলে পররাষ্ট্র স’চিব বলেন, অবশ্যই আলোচনায় আসবে সে সব বি’ষয়। তবে মেইন ফোকাস থাকবে মুজিববর্ষ।

ভারতের রাজধানী দিল্লিতে মুসলমানদের ওপর সহিং’সতার ঘটনায় নরেন্দ্র মোদির ঢাকায় আসার বি’রোধিতা করে আসছে কয়েকটি সংগঠন। কেউ কেউ নরেন্দ্র মোদির ঢাকায় আমন্ত্রণ প্রত্যাহারেরও দাবি জানিয়ে আসছেন। ওই সব দাবির মুখে রোববার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও স’চিব নরেন্দ্র মোদির ঢাকায় আসার বি’ষয়টি নিশ্চিত করলেন।

বিআইআইএসএস’র চেয়ারম্যান রাষ্ট্রদূত এম ফজলুল করিমের সভাপতিত্বে আয়োজিত সেমিনারে আরও বক্তব্য দেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মহাপরিচালক মোহাম্মদ খোরশেদ আলম খাস্তগীর, বাংলাদেশস্থ চীনা অ্যাম্বাসির ডেপুটি চিফ অব মিশন ইয়ান হুয়ালং, বিআইআইএসএস’র ভারপ্রাপ্ত মহাপরিচালক কর্নেল শেখ মাসুদ আহমেদ, সাবেক রাষ্ট্রদূত মুন্সি ফয়েজ আহমেদ, হোসাইন জামিল প্রমুখ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here